1. info@voicectg.com : Voice Ctg :
বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৭:১৪ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
মাদ্রাসা বন্ধ তারপরেও উড়ছে জাতীয় পতাকা রাষ্টীয় অবমাননা দেখার যেন কেউ নেই। জাফর আহমেদ জয় ছিলেন একজন উদার মনের দানবীর-এমপি শাওন দক্ষিণ ভোলায় পর্যটনের অপার সম্ভাবনার দুয়ার খুলবে স্বপ্নবাস্তবের পদ্মাসেতু। ভোলার সোনামণি কিন্ডার গার্টেন শিক্ষকের হাতে যৌন হয়রানির শিকার সহকারী শিক্ষিকা। পদ্মাসেতুতে প্রথম টোল দিলেন পদ্মাসেতুর প্রথম যাত্রী বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সুনামগঞ্জে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ৩০০ শতাধীক অসহায় দুঃস্থ জনগনের মাঝে ত্রাণ দিল চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগ নেতা দেবাশীষ পাল দেবু। বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬৮ জন। আওয়ামীলীগ এর প্রতিষ্ঠা, মুক্তিযুদ্ধ ও ইতিহাসের  ধারাপাত আমিই, তোমার অর্ধঙ্গীনি—লেখক বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ কাজল দাস, সম্পাদক ভয়েস চট্টগ্রাম। বাইশারীতে অপহরণের নাটক সাজিয়ে পরিবার থেকে টাকা আদায় প্রতারক হারুন গ্রেফতার।

খাগড়াছড়িতে বন্যার পানি, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত।

জেলা প্রতিনিধিঃ
  • প্রকাশিত: রবিবার, ১৯ জুন, ২০২২

 

খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলায় অবিরাম বর্ষণে মাইনি নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে মেরুংয়ের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এতে অন্তত অর্ধশতাধিক বসতঘরে পাহাড়ি ঢলের পানি প্রবেশ করেছে। পানি বাড়তে থাকায় স্থানীয় সড়কে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

গত ২ দিনে ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে মাইনি নদীর তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়। এতে মেরুং ইউপির চিটাগাংপাড়াসহ অন্তত ৫০টি বসতঘরে পানি প্রবেশ করেছে। বসতঘরে থাকা লোকজন আশ্রয় নিয়েছেন নিকটস্থ আত্নীয়-স্বজনের বাসায়। পানির নিচে তলিয়ে গেছে মৌসুমী শাকসবজি ও বীজতলা।

দীঘিনালা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা নুরে আলম সিদ্দিক জানান, ভারী বর্ষণে মেরুংয়ের আউশ মৌসুমের ১৮ হেক্টর জমির বীজতলা ও গ্রীষ্মকালীন ৪০ হেক্টর জমির সবজি পানির নিচে তলিয়ে গেছে।

দেখা যায় দীঘিনালা ও লংগদু সড়কের মেরুং স্টিলের সেতু পানির নিচে তলিয়ে যায়। এতে দীঘিনালা উপজেলা ও লংগদু উপজেলা সড়কের যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। এ ছাড়া মেরুং চিটাগাং পাড়াসহ অন্তত ৫০টি বসতঘরে পানি প্রবেশ করেছে। মেরুং পুলিশ ফাঁড়ি সংলগ্ন বাজারের কিছু অংশে পানি প্রবেশ করেছে। পানি বাড়তে থাকায় মেরুং বাজার পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ার সঙ্কা তৈরি হয়েছে।

মেরুং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মাহমুদা বেগম লাকী জানান, মেরুং ইউপিতে গতকাল ১৮ জুন দুপুরে মাইকিং করে নদীর তীরবর্তী ও পাহাড় ধসের ঝুঁকিতে থাকা লোকজনকে নিরাপদ আশ্রয়ে আসার জন্য বলা হয়েছে। আমরা ইতোমধ্যে কয়েকটি আশ্রয়কেন্দ্র নির্ধারণ করে রেখেছি।

পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তাদেরকে সেখানে ওঠার জন্য বলা হয়েছে। আশ্রয়কেন্দ্রগুলো হলো রশিকনগর দাখিল মাদ্রাসা, রশিকনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বেতছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ছোট মেরুং উচ্চ বিদ্যালয়, ছোট বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আর এ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

দীঘিনালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহমিদা মুস্তফা জানান, ভারী বৃষ্টিপাতে নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে উপজেলার মেরুংয়ের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে। পাহাড় ধসে ক্ষয়ক্ষতির ঝুঁকি এড়াতে মাইকিং করে নিরাপদ আশ্রয়ে আসার জন্য বলা হয়েছে।

এ ছাড়া পানি বাড়তে থাকলে নিরাপদ আশ্রয়কেন্দ্রে লোকজনের অবস্থানের জন্য বলা হয়েছে। আশ্রয়কেন্দ্রে আসা লোকজনের জন্য উপজেলা প্রশাসন শুকনো খাবারসহ যাবতীয় সহযোগিতার ব্যবস্থা করে রেখেছে।

আরো সংবাদ পড়ুন

ওয়েবসাইট নকশা প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত